• ঢাকা
  • বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭
Safe Diagnostic Center

ব্যাংকের তারল্য সংকট কাটাতে হবে


লক্ষ্মীপুর টাইমস | অনলাইন ডেস্ক প্রকাশিত: এপ্রিল ৭, ২০২০, ০১:০৫ এএম ব্যাংকের তারল্য সংকট কাটাতে হবে

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেছেন, করোনা পরিস্থিতিতে ভয়াবহ সংকটে পড়েছে দেশ। এই সংকটে ব্যাংকিং খাত আরও দুর্বল হয়ে যাবে। তারল্য সংকট তীব্র হতে পারে। এ জন্য ব্যাংকগুলোকে আমানত সংগ্রহের সুযোগ দিতে হবে। তারল্য সংকট কাটাতে না পারলে খুবই শ্লথ হয়ে পড়বে ব্যাংকিং কার্যক্রম। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা কঠিন সমস্যায় রয়েছেন। তাদের অর্থায়ন করা জরুরি। এ জন্য এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে। বাংলাদেশ প্রতিদিনকে ইব্রাহীম খালেদ বলেন, সরকার যে সুদহার নীতি নিয়েছে সেটি নিয়ে ভাবতে হবে। কম সুদে ঋণ দিতে হবে ব্যাংকগুলোকে। কিন্তু ব্যাংকের হাতে টাকা নেই। বর্তমান সংকটের কারণে পরিস্থিতির আরও অবনতি হবে। ঋণ আদায় হচ্ছে না। বিপুলসংখ্যক খেলাপি আগে থেকেই আছে। নতুন করে আরও খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়তে পারে। ব্যাংকের অন্যান্য ক্ষেত্রে আয় কমে যাবে। তাই এ সংকট দ্রুত কেটে যাবে বলে আমি মনে করি না। তিনি বলেন, রেমিট্যান্স কমে যাওয়া খুবই শঙ্কার। করোনা-পরবর্তী সময়ে রেমিট্যান্স বাড়াতে না পারলে সংকট দীর্ঘায়িত হবে। মানুষের আয়বৈষম্য নিয়ে করোনা পরিস্থিতির পরে দেশের অর্থনীতি কঠিন সংকটের মধ্যে পড়বে। বর্তমান পরিস্থিতিতে নিম্ন আয়ের মানুষ ছাড়াও যারা বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত, তারাও সংকটের মধ্যে রয়েছেন। প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে তারা কেউ বেতন পাবেন না। এদের নিয়ে রাষ্ট্রের এত দিন কোনো চিন্তা ছিল না। স্বাস্থ্য খাতের যে করুণ চিত্র আমরা দেখছি সেটি খুবই বেদনাদায়ক। তিনি বলেন, এই সংকট মুহূর্ত কেটে যাওয়ার পর বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে সরকারকে নতুন নীতি নিতে হবে। বাংলাদেশে প্রান্তিক মানুষ থেকেই কর আদায় বেশি করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে বরাদ্দ খুবই অপ্রতুল। নিম্ন আয়ের মানুষের কাছ থেকে কর নিয়ে খরচ করা হয়েছে কর্মকর্তাদের বেতন ও অপ্রয়োজনীয় বহু প্রকল্পে, যার সুবিধা সাধারণ মানুষ পায়নি। যদি পেত এখন আমরা এই সংকট দেখতাম না। এসব সংকটে প্রভাব পড়বে পুরো ব্যাংকিং কার্যক্রমে। রপ্তানি-বাণিজ্য নিয়ে যে ধরনের নীতি আছে, সেটি নিয়েও পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নিতে হবে। স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে প্রচুর বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে দ্রুততার সঙ্গে, যাতে মানুষ সরাসরি সুফল পায়।

Side banner