• ঢাকা
  • বুধবার, ০৮ জুলাই, ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭
Safe Diagnostic Center

গ্রীষ্মে শরীর বিশুদ্ধ রাখার প্রাকৃতিক খাবার সমূহ


লক্ষ্মীপুর টাইমস প্রকাশিত: জুন ১, ২০২০, ০৫:১৪ পিএম গ্রীষ্মে শরীর বিশুদ্ধ রাখার প্রাকৃতিক খাবার সমূহ

ভাজা-পোড়া খাবার তো অনেক হল এবার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করার পালা।

গরমকালে হজমের সমস্যার পাশাপাশি নানা রকমের পেটের সমস্যা দেখা দেয়। তাই এইসময় শরীর ঠাণ্ডা রাখে ও বিষাক্ত উপাদান দূর করে এমন খাবার খাওয়া উপকারী।

পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে গরমে শরীর সুস্থ ও পরিষ্কার রাখে এমন কয়েকটি খাবার সম্পর্কে জানানো হল।  

লেবু:

বহু বছর ধরেই পরিষ্কারক খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে লেবু। এর কড়া টক স্বাদ এবং ‘প্লেথোরা’ শরীরের জন্য উপকারী।

লেবুতে আছে অ্যালকালাইন যা, শরীরকে পরিষ্কার করে এবং  প্রাকৃতিক পিএইচ’য়ের ভারসাম্য বজায় রাখে। এটা ভিটামিন সি’য়ের ভালো উৎস।

এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ‘ফ্রি র‌্যাডিকেল’ এবং হজমের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে। এটা প্রাকৃতিক মূত্রবর্ধক যা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সহায়তা করে।

উপকার পেতে: শসার রসের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে পান করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

আদা:

রয়েছে শরীর পরিষ্কারক ও রোগপ্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ানোর উপাদান। নিয়মিত আদা খাওয়া হজমে সহায়তা করে এবং শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ বের করে দিতে সহায়তা করে। আদা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভালো উৎস এবং এটা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে ও পেট ফোলাভাব কমায়।

উপকার পেতে: আদা, হলুদ ও মধু একসঙ্গে খাওয়া হলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

বিটরুট:

কড়া লাল রংয়ের বিটরুট বিটালাইন নামক ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ। যা শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান বের করে দিতে সহায়তা করে। এটা যকৃত থেকে বিষাক্ত এবং রাসায়নিক উপাদান দূর করতে সহায়তা করে এবং হজম ক্রিয়াকে সক্রিয় করে তোলে।

উপকার পেতে: বিটরুটের স্মুদি তৈরি করে পান করা।  

গ্রিন টি:

প্রতিদিনকার মসলা চায়ের বদলে গ্রিন টি খাওয়া বেশ উপকারী। পান করা থেকে শুরু করে এর টি ব্যাগ ত্বকে ব্যবহার করা পর্যন্ত সব কিছুই উপকারী। এটা শরীর ও ত্বক দুটোই ভালো রাখে।

গ্রিন টি অ্যান্টি অক্সিডেন্টের ভালো উৎস যা শরীরকে পরিষ্কার করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটা যকৃত ভালো রাখে।

উপকার পেতে: লেবু ও গ্রিন টি একসঙ্গে পান করা ভালো।

পুদিনা:

পুদিনা পাতা গরমে শরীর ঠাণ্ডা রাখার পাশাপাশি হজমেও সহায়তা করে। এটা পেটে পাচকরসের প্রবাহ বাড়িয়ে হজম ও বিপাক ক্রিয়া বাড়ায়। পুদিনার তেল খুব ভালো অ্যান্টিসেপ্টিক ও অ্যান্টি ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান হিসেবে কাজ করে যা হজম ও প্রদাহ নিরাময়ে সহায়ক। এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ‘ফ্রি র‌্যাডিকেল’য়ের কারণে হওয়া ক্ষয় পূরণ করে ও শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করে সুস্থ ও তারুণ্যময় রাখে।

উপকার পেতে: দই ও পুদিনা পাতা একসঙ্গে খেলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

এছাড়া পালংশাক, ধনেপাতা, আপেল ও পেঁপে এমনই উপকারী খাবার যা পেটের নানান সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে।

Side banner